৩০শে আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
১৪ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৮ই মহর্‌রম, ১৪৪৬ হিজরি

    সর্বশেষ খবর

    সবার শেষ-টা যেন নিজের মতো হয় – সিআরসেভেন

    কোয়ার্টার ফাইনালে মরক্কোর বিপক্ষে হেরে পর্তুগালের বিশ্বকাপ স্বপ্ন শেষ হয়ে যায়, সঙ্গে স্বপ্নের ইতি ঘটে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোরও।

    কাতারের আল থুমামা স্টেডিয়ামে চোখের জলে বিদায় নিয়েছেন ফুটবলের জীবন্ত কিংবদন্তি ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। মরক্কোর সাথে ১-০ গোলের ব্যাবধানে হেরে যায় রোনালদোর পর্তুগাল। কাঁদতে কাঁদতে ছেড়েছেন মাঠ । তিনি নিজে কেঁদেছেন সাথে কাদিয়েছেন সারাবিশ্বের কোটি কোটি সমর্থকদেরও। ১৮ বছর পর্তুগীজ জার্সি পরে যে মাঠ দাপিয়ে বেড়িয়েছেন । দেশকে জিতিয়েছেন ইউরো, ভেসেছেন ব্যক্তিগত সাফল্যের সর্বোচ্চ চুড়ায়। আক্ষেপ ছিল একটি বিশ্বকাপের এবং  সেখানে হতাশ হয়েছেন পাঁচ-পাঁচটি বার।

    ৩৭ বছর বয়সী রোনালদোকে দেখা যাবে না দ্যা গ্রেটেস্ট শোন অন আর্থে। তাকে বলা হয় পর্তুগিজ যুবরাজ। দেশের হয়ে খেলেছেন সবচেয়ে বেশি, ১৯৬টি ম্যাচ। এখনও পর্যন্ত গোল করেছেন ১১৮টি। লুইস ফিগোদের সোনালি প্রজন্ম যেটা পারেননি পর্তুগালকে সেটা উপহার দিয়েছেন তিনি। ২০১৬ সালে জিতিয়েছেন ইউরোর মুকুট। ২০০৪ সালেও ইউরোর ফাইনাল খেলেছিলো পর্তুগাল।

    বিশ্বকাপ থেকে বিদায়ের পর মুখ খুলেন রোনালদো। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে দিয়েছেন এক আবেগঘন পোস্ট। সবার শেষ-টা যেন নিজের মতো হয় এমন প্রত্যাশা করেছেন সিআরসেভেন।

    রোনালদো বলেন, ‘পর্তুগালের হয়ে বিশ্বকাপ জেতা আমার ক্যারিয়ারের সবচেয়ে বড় ও উচ্চাভিলাষী স্বপ্ন। আন্তর্জাতিক পর্যায়ে আমি অনেক শিরোপা জয় করেছি, পর্তুগালের হয়েও। কিন্তু বিশ্বের সর্বোচ্চ পর্যায়ে নিজের দেশের নাম লেখানো আমার সবচেয়ে বড় স্বপ্ন ছিল। আমি এর জন্য লড়াই করেছি। আমি এই স্বপ্নের জন্য কঠিন লড়াই চালিয়ে গেছি।’

    সমর্থকদের প্রতি প্রকাশ করেন কৃতজ্ঞতা। ‘১৬ বছরের বেশি সময় ধরে আমি ৫ বিশ্বকাপে মাঠে নেমে গোল করেছি। অনেক গ্রেটদের পাশে খেলেছি এবং অগণিত পর্তুগিজের সমর্থন পেয়েছি। আমি আমার সর্বস্ব দিয়েছি এবং সবটুকু মাঠে দিয়ে এসেছি। লড়াই শেষে আমি আর ফিরে তাকাই না এবং স্বপ্ন পূরণে আমি হাল ছাড়ি না। ’

    বিশ্বকাপের শুরুতে হারাতে হয়েছে ক্লাব। ক্লাবের মতো বিশ্বকাপের মঞ্চেও রোনালদোকে বসে থাকতে হয়েছে বেঞ্চে। সেই নিয়েও হয়েছে অনেক বিতর্ক। রোনালদো জানিয়েছেন তার দেশের প্রতি নিবেদনের কথা।

    রোনালদো লেখেন,  ‘দুঃখের বিষয় গতকাল সেই স্বপ্নের পরিসমাপ্তি ঘটেছে। আমি শুধু এটুকুই বলবো, অনেক কথা আর লেখা হয়েছে, অনেক গুঞ্জন ছড়ানো হয়েছে; কিন্তু পর্তুগালের প্রতি আমার নিবেদনে এতটুকুও পরিবর্তন আসেনি। আমি সবসময় সবার উদ্দেশ্যের জন্য লড়াই করেছি এবং আমি কখনোই আমার সতীর্থ এবং দেশ থেকে মুখ ফিরিয়ে নেবো না। এই মুহূর্তে আর তেমন কিছু বলার নেই। পর্তুগালকে অনেক ধন্যবাদএবং কাতারকেও ধন্যবাদ। স্বপ্নটা যতক্ষণ ছিল ভালোই ছিল। এখন আশা করি, সবার শেষটা নিজের মতো করে হোক।

    মাহফুজা ১১-১২

     

    আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
    আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

    Latest Posts

    spot_imgspot_img

    আলোচিত খবর