১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
২৭শে মে, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
২৬শে শাওয়াল, ১৪৪৩ হিজরি

    সর্বশেষ খবর

    ভেঙে গেলো সোহিনীর ৩ বছরের প্রেম!

    টলিউড অভিনেত্রী সোহিনী সরকার। ধরাবাঁধা ছক ভেঙেছেন, নিজের মতো গড়েছেন নিয়ম। ব্যক্তিগত জীবনে একাধিক প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়েছেন এই নায়িকা। সর্বশেষ অভিনেতা রণজয় বিষ্ণুর সঙ্গে হয় তার মনের লেনাদেনা। চুটিয়ে প্রেম করছিলেন তারা; শুধু তাই নয় লকডাউনে একসঙ্গেও থেকেছেন। খবর উড়ছিল, পূর্বের মতো নতুন প্রেমিকের সঙ্গে লিভ-ইন করছেন সোহিনী। হঠাৎ জানা গেলো, ভেঙে গেছে এ জুটির ৩ বছরের প্রেম।

    সোশ্যাল মিডিয়ায় সোহিনীর একটি পোস্টকে কেন্দ্র করে প্রেমের বিচ্ছেদের খবর ছড়িয়েছে অন্তর্জালে। ইনস্টাগ্রাম স্টোরিতে সোহিনী লিখেছেন—‘সিঙ্গেল। আর এই একা থাকার প্রতিটা মুহূর্ত উপভোগ করছি।’ কয়েক দিন আগে রণজয়ের জন্মদিনেও হাতে হাত রেখে কেক কেটেছেন সোহিনী। কিন্তু আকস্মিকভাবে কী ঘটলো? সেই প্রশ্ন এখন নেটিজেনদের। যদিও এ প্রশ্নের জবাব মেলেনি। রণজয়ের ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইল ঘুরে দেখা যায়, সোহিনীকে আনফলো করেছেন তিনি।
    সোহিনীর সঙ্গে অনেকদিন লিভ-ইনে আছেন- এ কথা জানিয়েছিলেন রণজয়। গত মার্চে রণজয় বলেন—‘সেমি লিভ-ইন বলা যায়। কখনো সোহিনী আমার বাড়িতে চলে আসে, কখনো আমি ওর বাড়িতে চলে যাই। কখনো যে যার মতো থাকি। আর আমাদের পরিবারও এ ব্যাপারে খুব উদার মানসিকতার। আমরা একে অপরকে পছন্দ করি, একসঙ্গে চলতে চাই, সেটাকে সকলে সম্মান করেন।’

    বিয়ের পরিকল্পনা কত দূর? জবাবে রণজয় বলেছিলেন, ‘বিয়ের পরিকল্পনা তো নিজেদের মধ্যে চলতেই থাকে। সম্পর্কের প্রায় তিন বছর হয়ে গেল। সব কিছু ঠিক করে দিনটা জানাব। শুধু তো আমাদের উপরে ব্যাপারটা নির্ভর করছে না। এতদিন করোনা সংকট ছিল, এখন যুদ্ধ-যুদ্ধ হাওয়া। তবে আমরা খুব জমকালো কিছু করব না, খুব সাদামাঠাভাবে বিয়ে করার ইচ্ছে।

    রণজয়-সোহিনী প্রথম একসঙ্গে কাজ করেন ‘জাজমেন্ট ডে’ সিরিজে। তারপর অনেক ফটোশুট একসঙ্গে করেছেন। তবে বন্ধুত্বের শুরু ২০১৩ সালে। আর প্রথম প্রেমের প্রস্তাব দেন রণজয়। সোহিনীর ভাষায়, ‘দার্জিলিংয়ের রাস্তায় রণজয় বিছুটি পাতা দিয়ে আমায় প্রপোজ করেছিল।’

    অনির্বাণ ভট্টাচার্যের সঙ্গে সোহিনীর প্রেম ছিল। এসবই জানেন রণজয়। আবার রণজয়ও একাধিক প্রেমের সম্পর্কে জড়িয়েছিলেন। শুধু তাই নয় লিভ-ইন সম্পর্কেও ছিলেন। সে খবরও জানেন সোহিনী। এসব জানার পরও কি তারা এ সম্পর্ক নিয়ে সিরিয়াস? জবাবে রণজয় বলেছিলেন, ‘প্রত্যেক মানুষের জীবনে শূন্য জায়গা থাকে। আমার সেই শূন্যস্থানটি পূরণ করেছে সোহিনী। এজন্য সোহিনীর উপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছি। আমার অনেক সিক্রেট ওর সঙ্গে শেয়ার করেছি, যা আগে কারো সঙ্গে করিনি।’

    আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
    আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

    Latest Posts

    spot_imgspot_img

    আলোচিত খবর