৩০শে চৈত্র, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
১৩ই এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ
৪ঠা শাওয়াল, ১৪৪৫ হিজরি

    সর্বশেষ খবর

    তুরস্ক এবং সিরিয়ায় আঘাত হানা বিধ্বংসী ভূমিকম্পে প্রাণহানি ঘটেছে ১১ হাজার ২৩৬ জনের

    তুরস্ক এবং সিরিয়ায় আঘাত হানা বিধ্বংসী ভূমিকম্পে মৃত্যুর সংখ্যা ১১ হাজার ছাড়িয়ে গেল। সোমবারের ভূমিকম্পে ধ্বংস হয়ে যাওয়া ভবনের নিচে আটকে পড়া শত শত মানুষকে উদ্ধার করা কঠিন হয়ে পড়েছে।

    দেশ দুটির উদ্ধারকারীরা বলেছেন, তীব্র ঠান্ডা এবং বৈরী আবহাওয়ার কারণে লোকজনকে জীবিত উদ্ধারের সময় দ্রুতই ফুরিয়ে আসছে। ধ্বংসস্তূপের নিচ থেকে লোকজনকে উদ্ধারে সময়ের বিপরীতে লড়াই করতে হচ্ছে তাদের।

    বুধবার দুই দেশের কর্তৃপক্ষের পরিসংখ্যানের বরাত দিয়ে ফরাসি বার্তা সংস্থার এএফপির এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, তুরস্ক-সিরিয়ায় ভূমিকম্পে মৃতের সংখ্যা ১১ হাজার ২০০ ছাড়িয়ে গেছে। স্থানীয় কর্মকর্তা এবং মেডিক্যালের চিকিৎসকরা বলেছেন, ভূমিকম্পে কেবল তুরস্কেই মারা গেছেন ৮ হাজার ৫৭৪ জন। এছাড়া সিরিয়ায় প্রাণ গেছে ২ হাজার ৬৬২ জনের। এর ফলে দুই দেশে ভূমিকম্পে প্রাণহানি ঘটেছে ১১ হাজার ২৩৬ জনের।

    উভয় দেশের উদ্ধারকারীরা বলেছেন, তুরস্কে ভূমিকম্পে আহত হয়েছেন প্রায় ৫০ হাজার মানুষ এবং সিরিয়ায় আহত হয়েছেন আরও ৫ হাজারের বেশি।

    বুধবার তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান দেশটির দক্ষিণাঞ্চলীয় শহর কাহরামানমারাস পরিদর্শন করেছেন ।  ভূমিকম্পের কেন্দ্রস্থল এই শহর পরিদর্শনে গিয়ে তিনি হতাহতদের ব্যাপারে হালনাগাদ পরিসংখ্যান প্রকাশ করেছেন। টেলিভিশনের ছবিতে দেখা যায়, একজন কান্নারত বয়স্ক নারীকে জড়িয়ে ধরেছেন এরদোয়ান। পরে বিপুলসংখ্যক মানুষের ভিড় পেরিয়ে রেড ক্রিসেন্টের ত্রাণের তাঁবুর দিকে হেঁটে যান তিনি।

    স্মরণকালের এই ভয়াবহ ভূমিকম্পে হাজার হাজার বাড়িঘর ধ্বংস হয়েছে এবং অসংখ্য মানুষ ধ্বংসস্তূপের নিচে আটকা পড়েছেন।

    কেন্দ্রস্থলের কাছের শহর তুরস্কের গাজিয়ানতেপ এবং কাহরামানমারাসে প্রচণ্ড ধ্বংসলীলা চালিয়েছে এই ভূমিকম্প। এই দুই শহরের বেশিরভাগ ভবন ধসে পড়েছে।

    ভূমিকম্পে বিধ্বস্ত সিরিয়াকে জরুরি সহায়তা বাবদ ৪৪ লাখ ডলার (৩ কোটি ইউয়ান এবং বাংলাদেশি মুদ্রায় ৪৬ কোটি ৮৬ লাখ টাকা) দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে চীন। দেশটির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখাপাত্র মাও নিং বুধবার মন্ত্রণালয়ের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।পাশাপাশি একটি উদ্ধারকারী দলও পাঠিয়েছে। বুধবার ভোরের দিকে তুরস্কের আদানা বিমানবন্দরে দলটি পৌঁছেছে জানিয়েছে চীনের সরকারি টেলিভিশন চ্যানেল সিসিটিভি।

    সিসিটিভির প্রতিবেদনে আরও বলা হয়েছে, তুরস্কে পাঠানো সেই দলটিতে আছেন মোট ৮২ জন উদ্ধারকর্মী। তাদের সঙ্গে ২০ টন মেডিকেল ও অন্যান্য ত্রাণ সামগ্রী রয়েছে বলেও উল্লেখ করেছে সিসিটিভি।

    ভূমিকম্পে যারা অক্ষত আছেন, তারাও পড়েছেন সীমাহীন ভোগান্তিতে। ঘর-বাড়ি ধ্বংস হয়ে যাওয়ায় তারা আশ্রয় নিয়েছেন স্কুল, মসজিদ এমনকি বাস স্টেশনগুলোতেও। আগুন জ্বালিয়ে কোনো প্রকারে ব্যাপক ঠান্ডা থেকে নিজেদের রক্ষা করছেন।

    আশেপাশের গাজিয়ানটেপ এলাকাতে দোকানপাট বন্ধ রয়েছে। বিস্ফোরণ এড়াতে এলাকাগুলোতে গ্যাসের লাইন কেটে দেওয়া হয়েছে এবং পেট্রোল খুঁজে পাওয়া কঠি। ফলে বেঁচে থাকা মানুষগুলোকে তীব্র শীতের মধ্যে দিনাতিপাত করতে হচ্ছে

    ধ্বংসযজ্ঞের ভয়াবহতায় তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান মঙ্গলবার দেশটির দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলীয় ১০টি প্রদেশে তিন মাসের জন্য জরুরি অবস্থা ঘোষণা করেছেন।

    সোমবার ভোরে তুরস্কের দক্ষিণাঞ্চল ও সিরিয়ার উত্তরাঞ্চলে সাত দশমিক আট মাত্রার শক্তিশালী ভূমিকম্প আঘাত হানে।মাত্র ৪০ সেকেন্ড ধরে চলা এ ভূমিকম্পের কম্পন পৌঁছায় লেবানন ও সাইপ্রাসেও। জানা গেছে, ১৯৯৯ সালের পর এটাই তুরস্কে সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্প।

    মাহফুজা ৮-২

     

    আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
    আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

    Latest Posts

    spot_imgspot_img

    আলোচিত খবর