৮ই চৈত্র, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
২২শে মার্চ, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
৩০শে শাবান, ১৪৪৪ হিজরি

    সর্বশেষ খবর

    শূন্য হওয়া ছয় আসনের উপনির্বাচনে তিনটিতেই আওয়ামী লীগের প্রার্থী জয়ী

    বিএনপির সংসদ সদস্যদের পদত্যাগে শূন্য হওয়া ছয় আসনের উপনির্বাচনে তিনটিতেই নৌকা প্রতীকে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের প্রার্থী জয় পেয়েছেন। এর বাইরে বিএনপির সাবেক এক আলোচিত সংসদ সদস্য, জাতীয় পার্টির হয়ে একজন এবং জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল-জাসদের হয়ে ভোটের লড়াইয়ে জিতেছেন একজন।

    ঠাকুরগাঁও-৩, বগুড়া-৪, বগুড়া-৬, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ উপনির্বাচনের ভোট নিয়ে প্রধান নির্বাচন কমিশনার বলেন, ‘৬টি আসনে ৪০ জন প্রার্থী ছিল। ভোটকেন্দ্র ৮৬৭ ইভিএমের মাধ্যমে ভোট হয়েছে। সবকটি আসনে ভোটার সংখ্যা ছিল ২২ লাখ ৫৪ হাজার ২১৭ জন।’

    এই উপনির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে বিএনপির দলছুট নেতা আবদুস সাত্তার ভূঁইয়া জয় পেয়েছেন কলার ছড়া প্রতীকে। চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকের প্রার্থী জিয়াউর রহমান, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনের আওয়ামী লীগের প্রার্থী আব্দুল ওদুদ ও বগুড়া-৬ আসনে আওয়ামী লীগের রাগেবুল আহসান রিপু জয়ী হয়েছেন।

    বগুড়া-৪ (নন্দীগ্রাম-কাহালু) আসনে উপনির্বাচনে মহাজোটের প্রার্থী জাসদ নেতা একেএম রেজাউল করিম তানসেন মশাল প্রতীকে আর ঠাকুরগাঁও-৩ সংসদীয় আসনের উপনির্বাচনে লাঙ্গল প্রতীকে জয় পেয়েছেন হাফিজ উদ্দিন আহম্মেদ।

    বগুড়া-৬ আসনের উপ-নির্বাচনে আওয়ামী লীগের রাগেবুল আহসান জয়ী হয়েছেন। এছাড়া, বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসন থেকে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন মশাল প্রতীক নিয়ে মহাজোট প্রার্থী জাসদ নেতা একেএম রেজাউল করিম তানসেন।

    বুধবার রাতে বগুড়ার উপ-নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা ও বগুড়ার জেলা প্রশাসক সাইফুল ইসলাম এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

    বগুড়া-৬ আসনে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী রাগেবুল আহসান রিপু নৌকা প্রতীকে ৪৯ হাজার ৩৩৬ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী ট্রাক মার্কা নিয়ে আবদুল মান্নান আকন্দ পেয়েছেন ২১ হাজার ৮৬৪ ভোট। এই আসনে হিরো আলম পেয়েছেন ৫ হাজার ২৭৪ ভোট।

    অন্যদিকে, বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনে মহাজোটের প্রার্থী জাসদ নেতা একেএম রেজাউল করিম তানসেন মশাল প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২০ হাজার ৪০৫ ভোট। তার নিকটতম প্রার্থী হিরো আলম একতারা প্রতীকে পেয়েছেন ১৯ হাজার ৫৭১ ভোট। মহাজোটের বিজয়ী প্রার্থী তানসেন এবং হিরো আলমের ভোটের ব্যবধান ৮৩৪।

    ঘোষিত ফলাফলে দেখা যায়, বগুড়া সদর আসনে ১৪৩টি কেন্দ্রে মোট চার লাখ ১০ হাজার ৭৪৩ জন ভোটারের মধ্যে ৯১ হাজার ৭৪২ জন ভোটার ভোট দেন। শতকরা হিসাবে তা মোট ভোটারের ২২ দশমিক ৩৪ ভাগ। এর মধ্যে মাসুদার রহমান হেলাল পেয়েছেন (আপেল প্রতীকে) এক হাজার ৬১৮ ভোট, নজরুল ইসলাম (বটগাছ) ৪৬৮ ভোট, সরকার বাদল (কুড়াল) দুই হাজার ৮১১ ভোট, ফয়সাল বিন শফিক (গোলাপ ফুল) ৪১৭ ভোট, হিরো আলম (একতারা) পাঁচ হাজার ২৭৪ ভোট, নূরুল ইসলাম ওমর (লাঙল) ছয় হাজার ৯৯৫ ভোট, আফজাল হোসেন (মাছ) ১৭০ ভোট, ইমদাদুল হক ইমদাদ (মশাল) এক হাজার ৩৪০ ভোট এবং রাকিব হাসান (কুমির) এক হাজার ৪৪৯ ভোট।

    ১৯৭০ সালের নির্বাচনে এই আসন থেকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ডা. জাহিদুর রহমান নির্বাচিত হন। এরপর ১৯৭৩ সালের নির্বাচনে বিজয়ী হন তৎকালীন আওয়ামী লীগ নেতা অ্যাডভোকেট হাসেম আলী খান জাহেদী। এই সংসদ ১৯৭৯ সাল পর্যন্ত কার্যকর ছিল। এরপর জিয়াউর রহমান রাষ্ট্রক্ষমতায় এলে সদর আসনটি হাতছাড়া হয় আওয়ামী লীগের। দীর্ঘ ৪৩ বছরেও এখানে আওয়ামী লীগ আর নির্বাচিত হতে পারেনি। তবে ২০০৮ সালে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সাথে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করে বগুড়া জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি (বর্তমানে প্রয়াত) আলহাজ মমতাজ উদ্দিন পেয়েছিলেন ৭৪ হাজার ৭০০ ভোট। এরপর আর ভোটের সংখ্যা বাড়েনি এই আসনে। ২০১৯ সালের উপনির্বাচনে এই আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী ৩২ হাজার ২৯৭ ভোট পেয়ে পরাজিত হন। ওই উপনির্বাচনে বিএনপি নেতা গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ ৮৯ হাজার ৭৪২ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছিলেন।

    বুধবার সকাল সাড়ে ৮টায় বগুড়ার এই দুটি আসনের ২৫৫টি কেন্দ্রে ভোটগ্রহণ শুরু হয়। চলে বিকাল ৪টা পর্যন্ত। সবকেন্দ্রেই ইলেকট্রনিক ভোটিং মেশিনে (ইভিএম) ভোট নেওয়া হয়। বগুড়া-৬ (সদর) আসনে মোট ভোটার  ৪ লাখ ১০ হাজার ৭৪৩ জন। বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনে মোট ভোটার ৩ লাখ ২৮ হাজার ৪৬৯।  সদর আসনে মোট ১১ জন প্রার্থী এবং বগুড়া-৪ আসনে মোট ৯ জন প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন।

    মাহফুজা ২-২

     

    আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
    আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

    Latest Posts

    spot_imgspot_img

    আলোচিত খবর