২১শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
৪ঠা ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
১৩ই রজব, ১৪৪৪ হিজরি

    সর্বশেষ খবর

    হিরো আলমের দুই আসনেই মনোনয়ন বাতিল

    বগুড়ার ৪ ও ৬ আসনের উপ-নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিরো আলমের মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। রোববার  দুপুর ১টায় রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক সাইফুল ইসলাম মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই শেষে এ ঘোষণা দেন ।

    তিনি বলেন, আশরাফুল হোসেন আলম ওরফে হিরো আলমের ১ শতাংশ ভোটার তালিকায় গড়মিল পাওয়া গেছে। সেখানে কয়েকজন ভোটারের সমর্থন না পাওয়ায় মনোনয়ন বাতিল করা হয়।

    এবার বিএনপি নেতাদের সংসদ থেকে পদত্যাগ করার কারণে বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) ও বগুড়া-৬ (সদর) আসন শূন্য হয়। ফলে তৃতীয়বারের মতো আসনটিতে নির্বাচন দিতে হচ্ছে।

    যাচাই-বাছাইয়ের শেষ দিনে দুই আসনের মোট ২২ প্রার্থীর মধ্যে ১১ জনের মনোনয়ন বাতিল ঘোষণা করা হয়েছে। বাতিলের তালিকায় হিরো আলমসহ বগুড়া-৪ আসনের পাঁচ জন আর বগুড়া-৬ আসনের ছয় প্রার্থী আছেন।

    বগুড়া-৪ আসনে বাতিল হওয়া অন্য প্রার্থীরা হলেন স্বতন্ত্র প্রার্থী গোলাম মোস্তফা, ইলিয়াস আলী, কামরুল হাসান সিদ্দিকী জুয়েল ও আব্দুর রশিদ।

    বগুড়া-৬ আসনে বাতিল হওয়া অন্য প্রার্থীরা হলেন বাংলাদেশ কংগ্রেসের মনসুর রহমান, স্বতন্ত্র প্রার্থী সরকার বাদল, আব্দুল মান্নান আকন্দ, সৈয়দ কবির আহম্মেদ মিঠু ও রাকিব হাসান।

    জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম বলেন, প্রত্যেকের দাখিল করা তথ্যে গড়মিল থাকায় মনোনয়নপত্র বাতিল করা হয়েছে। তবে কারও আপত্তি থাকলে রোববার বিকেল ৪টার মধ্যে আপিল করতে পারবেন।

    হিরো আলম বিএনপির দুই সংসদ সদস্য পদত্যাগ করার পর বগুড়ার দুটি আসন থেকেই উপ-নির্বাচনে অংশ নিতে মনোনয়নপত্র নেন। আসন দুটি হলো বগুড়া-৬ (সদর) ও বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম)। কোনো আসন থেকেই প্রার্থিতা প্রত্যাহার করবেন না বলে জানিয়েছিলেন তিনি।

    ২০১৮ সালে একাদশ জাতীয় নির্বাচনেও হিরো আলম বগুড়া-৪ (কাহালু-নন্দীগ্রাম) আসনে মনোনয়নপত্র তোলেন। ২ ডিসেম্বর জেলা রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাইয়ের প্রথম দিনেই হিরো আলমের মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়। আপিল করলে নির্বাচন কমিশন শুনানির পর তা বাতিল করে।

    মনোনয়নপত্রে ভোটারের স্বাক্ষর জালিয়াতির অভিযোগ তুলে আপিলেও তার মনোনয়নপত্র বাতিল ঘোষণা করা হয়েছিল। পরে উচ্চ আদালতের তার মনোনয়ন বৈধ ঘোষণা করা হয়। একই বছরের ১৫ ডিসেম্বর তৎকালীন বগুড়ার রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা প্রশাসক ফয়েজ আহাম্মদ স্বতন্ত্র প্রার্থী হিরো আলমের হাতে পছন্দের ‘সিংহ’ প্রতীক তুলে দেন। ওই সময় তিনি ৬৩৮ ভোট ভোট পান এবং  এতে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হয়। তবে ভোটের মাঝমাঠে গিয়ে অবশ্য তিনি নির্বাচন বর্জন করেন।

    ২০১৮ সালে বগুড়া-৪ আসন থেকে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নিয়েছিলেন হিরো আলম। কিন্তু নির্বাচনে নজিরবিহীন কারচুপি, তার এজেন্টকে বের করে দেয়া এবং তার ওপর হামলার অভিযোগ এনে সেই ভোট বর্জন করেন তিনি।

    মাহফুজা ৮-১

     

    আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
    আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

    Latest Posts

    spot_imgspot_img

    আলোচিত খবর