১৬ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
৮ই রজব, ১৪৪৪ হিজরি

    সর্বশেষ খবর

    সারা দেশে শীতের তীব্রতা বেড়েছে; চুয়াডাঙ্গাতে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৮.৪ এবং ঢাকাতে ১১.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড

    চুয়াডাঙ্গায় ৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে। শুক্রবার ছিল ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এ হিসেবে শূন্য দশমিক ৬ ডিগ্রি কমেছে শনিবারের তাপমাত্রা। তাপমাত্রা আরও কমতে পারে। টানা দুদিন জেলায় মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে। ঘন কুয়াশার পাশাপাশি বইছে হিমেল বাতাসও।

    আবহাওয়া অফিস জানায়, শনিবার  সকাল ৯টায় ৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস দেশের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়।

    কনকনে শীতে বিপর্যস্ত জনজীবন। বিশেষ করে খেটে খাওয়া মানুষদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। প্রয়োজনীয় কাজ ছাড়া কেউ ঘরের বাইরে যাচ্ছেন না। এদিকে শীতজনিত রোগীর সংখ্যাও দিন দিন বাড়ছে। বেশি আক্রান্ত হচ্ছেন শিশু ও বৃদ্ধরা। চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের শিশুওয়ার্ডসহ অন্য ওয়ার্ডে বাড়ছে শীতজনিত রোগীর সংখ্যা।

    চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালের শিশু বিশেষজ্ঞ ডা. মাহবুবুর রহমান বলেন, তীব্র শীতে শ্বাসকষ্ট, ডায়রিয়াসহ শীতজনিত বিভিন্ন রোগে হাসপাতালের আউটডোরে প্রচুর রোগী চিকিৎসা নিচ্ছেন। প্রতিদিন ৩-৪০০ শিশুকে আউটডোরে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। এখন নিউমোনিয়া রোগী সংখ্যাও বাড়ছে।

    সারা দেশের সঙ্গে ঢাকায়ও তীব্র শীত অনুভূত হচ্ছে। রাজধানী কুয়াশাচ্ছন্ন রয়েছে। দিনের অর্ধেক পার হলেও দেখা যায়নি সূর্যের মুখ। সঙ্গে হিমেল হাওয়ায় শীত আরও বাড়িয়ে দিয়েছে।

    আজ সকালে রাজধানী ঢাকায় এ মৌসুমের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ১১.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করা হয়েছে। এ মৌসুমে ঢাকাতে আজকের তাপমাত্রাই সর্বনিম্ন বলে জানিয়েছে বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তর।

    শনিবার  বাংলাদেশ আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ মো. ওমর ফারুক এ তথ্য জানান।

    আপাতত দিনের তাপমাত্রা বাড়ছে এবং আগামীকাল থেকেই দিনের কুয়াশা অনেকটা কমে যাবে। তবে রাতের কুয়াশা থাকবে। ১০ অথবা ১১ জানুয়ারি থেকে তাপমাত্রা ব্যাপকভাবে কমতে থাকবে। তার মানে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৬ থেকে ৮ ডিগ্রিতে নামতে পারে।’

    আবহাওয়াবিদ মো. ওমর ফারুক বলেন, ‘ঢাকা, খুলনা, রংপুর ও রাজশাহী বিভাগের ১৭টি জেলায় জায়গায় শৈত্যপ্রবাহ আছে। ফরিদপুর, মাদারীপুর, কিশোরগঞ্জ, মানিকগঞ্জ, রাজশাহী, ঈশ্বরদী, বগুড়া, নওগাঁ, নাটোর, দিনাজপুর, নীলফামারী, পঞ্চগড়, সাতক্ষীরা, যশোর, চুয়াডাঙ্গা, কুষ্টিয়া এবং বরিশালের ওপর দিয়ে শৈত্যপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে।’

    রাজশাহীর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৯ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে এসেছে। শনিবার  ভোর ৬টায় এ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়। এটি চলতি শীত মৌসুমে রাজশাহীর সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। এর আগে, গত ২৯ ডিসেম্বর ৯ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়।

    পঞ্চগড় জেলায় দুদিন ধরে বইছে শৈত্যপ্রবাহ। শনিবার সকালে তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছে ৯ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস।  শুক্রবার তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছিল ৯ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস। তেঁতুলিয়া আবহাওয়া অধিদপ্তরের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা রাসেল শাহ এ তথ্যটি  জানান।

    এছাড়া দেশের বিভিন্ন এলাকায় রেকর্ড করা সর্বনিম্ন তাপমাত্রার তথ্যে বলা হয়েছে, যশোরে- ৮.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস, মাদারীপুরে- ৯ ডিগ্রি সেলসিয়াস, কুষ্টিয়ায়- ৯.৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস, ঈশ্বরদীতে- ৯.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস, দিনাজপুরে- ৯.৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস, ফরিদপুরে- ৯.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, নওগাঁয়- ৯.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস,  বরিশালে- ৯.৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস, নীলফামারীতে- ৯.৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস, সাতক্ষীরায়- ৯.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, কিশোরগঞ্জে- ৯.৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস, সিরাজগঞ্জে- ১০ ডিগ্রি সেলসিয়াস, বগুড়ায়- ১০.২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

    মাহফুজা ৭-১

     

    আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
    আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

    Latest Posts

    spot_imgspot_img

    আলোচিত খবর