১৬ই মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
৩০শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
৮ই রজব, ১৪৪৪ হিজরি

    সর্বশেষ খবর

    যানজটের নগরী ঢাকাবাসীকে স্বস্তি দিলো মেট্রোরেল

    স্টাফ রিপোর্টার : যানজটের নগরী ঢাকাবাসীকে স্বস্তি দিতে চালু হয়েছে মেট্রোরেল সার্ভিস। উত্তরার দিয়া বাড়ি থেকে আগারগাঁও-ফার্মগেট কাওরানবাজার-পল্টন- মতিঝিল হয়ে শেষ হবে কমলাপুরে।

    ২৮ ডিসেম্বর থেকে উত্তরার দিয়াবাড়ি থেকে আগারগাঁও পর্যন্ত চলাচল শুরু করেছে মেট্রোরেল, এ পথে স্টেশন পড়েছে নয়টি। পৌনে ১২ কিলোমিটার এই পথ পাড়ি দিতে মেট্রোরেলের সময় লাগে ১০ মিনিট ১০ সেকেন্ড।পরে মতিঝিল হয়ে কমলাপুর পর্যন্ত চলাচল করা যাবে এই উড়াল রেলপথে। তখন স্টেশনের সংখ্যা দাঁড়াবে ১৭ তে, দূরত্ব দাঁড়াবে ২১ দশমিক ২৬ কিলোমিটারে।

    ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ দেশের প্রথম এ মেট্রোরেলের প্রতি কিলোমিটারের ভাড়া ঠিক করেছে ৫ টাকা। তবে সর্বনিম্ন ভাড়া নির্ধারণ করা হয়েছে ২০ টাকা। তার মানে মেট্রোরেলে চড়তে ন্যূনতম কুঁড়ি টাকা গুনতেই হবে।

    উত্তরা দিয়াবাড়ি থেকে আগারগাঁও স্টেশন পর্যন্ত ভাড়া ঠিক করা হয়েছে ৬০ টাকা। উত্তরা নর্থ স্টেশন থেকে উত্তরা সেন্টার ও উত্তরা সাউথ স্টেশনে যেতে সর্বনিম্ন ভাড়া ওই ২০ টাকাই দিতে হবে। উত্তরা নর্থ থেকে পল্লবী ও মিরপুর-১১ স্টেশনের ভাড়া ৩০ টাকা, মিরপুর-১০ ও কাজীপাড়া স্টেশনের ভাড়া ৪০ টাকা এবং শেওড়াপাড়া স্টেশনের ভাড়া ৫০ টাকা।

    আর পল্লবী থেকে মিরপুর-১১, মিরপুর-১০ ও কাজীপাড়া স্টেশনের ভাড়া একই, ২০ টাকা। পল্লবী থেকে শেওড়াপাড়া ও আগারগাঁও স্টেশনের ভাড়া ৩০ টাকা।

    মেট্রোরেলের দ্বিতীয় ধাপ চালু হলে মিরপুর-১০ নম্বর থেকে ফার্মগেট যেতে গুনতে হবে ৩০ টাকা, আর কারওয়ান বাজার যেতে লাগবে ৪০ টাকা।

    মিরপুর–১০ স্টেশন থেকে শাহবাগ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাড়া ৫০ টাকা, সচিবালয় ও মতিঝিল স্টেশনে যেতে লাগবে ৬০ টাকা। তবে মিরপুর-১০ থেকে কমলাপুর স্টেশনে যেতে লাগবে ৭০ টাকা ভাড়া।

    তবে দীর্ঘমেয়াদী পাস নিলে ভাড়ায় ১০ শতাংশ ছাড়ের ব্যবস্থা নিতে মেট্রোরেল প্রকল্প বাস্তবায়নকারী কোম্পানি ডিএমটিসিএলকে নির্দেশনা দিয়েছে ঢাকা পরিবহন সমন্বয় কর্তৃপক্ষ।

    স্বপ্নের মেট্রোরেল উঠতে প্রথম দিকে যাত্রীদের এমন ভীড় দেখা গেছে।  এ ভীড় ঠেলে উপরে উঠতে হবে। এরপর চাইলে আপনি নিজেই আপনার টিকিট  বিক্রয় মেশিন থেকে নিতে পারবেন। এভাবে একপাশ দিয়ে টাকা দিবেন আর এ পাশ দিয়ে টিকিট বের হয়ে যাবে। পরে আপনি যদি টিকিটের চেয়ে বেশি টাকা দিয়ে থাকেন তা এখান দিয়ে  বের হয়ে আসবে। আপনি যদি নিজের টিকিট নিজে কাটতে না চান তা হলে কাউন্টারে চলে যাবেন সেখানে টিকিট কাটার লোক রয়েছে । সেখান থেকে আপনি টিকিট সংগ্রহ করতে পারবেন। এবার টিকিট সংগ্রহ  শেষ সামনে আগাবেন ।টিকিট বা কার্ডটি এখানে পান্স করবেন সেখানে আপনাকে সহায়তা করার জন্য লোক থাকবে গেট খুলে যাবে আপনি ভিতরে ঢুকতে পারবেন। এবার অপেক্ষার পালা শেষ চলে আসবে মেট্রোরেল আপনি উঠে পড়বের ট্রোনে। ট্রেনের মধ্যে রয়েছে বসার ব্যবস্থা চাইলে আপনি বসতে পারবেন। আর যদি বসতে না পারেন তা হলে দাঁড়িয়ে যেতে হবে আপনার গন্তবে।  এবার আপনি পৌছে গেলে আগারগাঁও কিংবা উত্তরা সেখানে বিআরটিসির বাস অপেক্ষা করছে । আপনি যেখানে যাবেন টিকিট কেটে সহজেই যেতে পারবেন সেখানে। মেট্রোরেল এভাবে যানজটের নগরী ঢাকাবাসীকে বাস কিংবা অন্য যানবাহনের চেয়ে এত দ্রুত যাতায়াত ঢাকাবাসীকে স্বস্তি দিয়েছে।

    আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
    আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

    Latest Posts

    spot_imgspot_img

    আলোচিত খবর