২২শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
৫ই ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ
১৪ই রজব, ১৪৪৪ হিজরি

    সর্বশেষ খবর

    এদেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে আর কেউ যেন ছিনিমিনি খেলতে না পারে -প্রধানমন্ত্রী

    প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জানালেন দেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে কেউ যেন আর ছিনিমিনি খেলতে না পারে, সেটিই বর্তমান সরকারের লক্ষ্য । সোমবার আওয়ামী লীগের নতুন সভাপতিমণ্ডলীর প্রথম সভার সূচনা বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

    সোমবার সন্ধ্যা ৭টার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকারি বাসভবন গণভবনে এ সভা শুরু হয়। দলটির সভাপতি শেখ হাসিনা সভায় সভাপতিত্ব করছেন।

    দলের সভাপতি শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে সভায় আওয়ামী লীগের নতুন কেন্দ্রীয় কমিটির ১৫ জন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের উপস্থিত আছেন।

    প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের সামনে এগিয়ে যেতে হবে। এদেশের মানুষের ভাগ্য নিয়ে আর কেউ যেন ছিনিমিনি খেলতে না পারে এটাই আমাদের একমাত্র লক্ষ্য।

    আওয়ামী লীগ সভাপতি বলেন, আমাদের সম্মেলন হয়ে গেছে। আবার নতুন করে আমরা কমিটি করেছি। নিয়ম অনুযায়ী গঠনতন্ত্র মোতাবেক আমরা আমাদের সদস্যদের নির্বাচিত করবো।

    শেখ হাসিনা বলেন, এই সংগঠনটাই আমাদের বড় শক্তি এটাও মাথায় রাখতে হবে। সংগঠন যদি শক্তিশালী থাকে আর মানুষের আস্থা-বিশ্বাস যদি অর্জন করতে পারে- তাহলে সরকার চালানো এবং দেশের উন্নয়ন করা কঠিন কাজ হয় না; এটা হলো বাস্তবতা। সে বাস্তবতা নিয়েই আমরা কাজ করে যাবো ইনশাআল্লাহ্।

    তিনি বলেন, ইনশাল্লাহ, আমাদের যে লক্ষ্য ২০৪১ সালের স্মার্ট বাংলাদেশ সেটা কীভাবে করবো, কী কী ক্ষেত্রে করবো তা আমি আগেও বলেছি। অর্থাৎ আমাদের পুরো জনগোষ্ঠী হবে স্মার্ট জনগোষ্ঠী, সেটাই আমরা করতে চাই। প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের সামনে এগিয়ে যেতে হবে। উন্নয়নশীল দেশ হয়েছি। উন্নত হতে হবে। এসডিজি বাস্তবায়ন করতে হবে। অর্জনগুলো ধরে থাকতে হবে।

    সরকারপ্রধান করোনা মহামারি এবং রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধের কথা তুলে ধরে বলেন, এসব ধাক্কা আন্তর্জাতিক পর্যায়ে না এলে আজকের বাংলাদেশকে আমরা আরও অনেক দূর এগিয়ে নিতে পারতাম।

    প্রধানমন্ত্রী বলেন, যখন যারা ক্ষমতায় এসেছে তাদের একটাই লক্ষ্য ছিল আওয়ামী লীগ ধ্বংস করা, আওয়ামী লীগকে শেষ করে দেয়া। আইয়ুব খান, ইয়াহিয়া, জিয়া, এরশাদ, খালেদা জিয়া সবাই।তিনি বলেন, এ দেশ ও জাতির যা কিছু অর্জন, তার সবই আওয়ামী লীগের হাত ধরে এসেছে। এ দেশের মানুষকে আওয়ামী লীগই দিয়েছে।

    শেখ হাসিনা বলেন, ‘আমরা স্যাটেলাইট উৎক্ষেপণ করেছি, স্যাটেলাইট যুগে পদার্পণ করেছি। আগামী ২৮ তারিখ মেট্রোরেল (উদ্বোধন), এটা কিন্তু ইলেকট্রিক ট্রেন। এটাও কিন্তু আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় না থাকলে হতো না। আজ কর্ণফুলী নদীর নিচে টানেল, সবচেয়ে বড় কথা হচ্ছে পদ্মা সেতু, যেটা নিয়ে আমাদের বিরাট একটা চ্যালেঞ্জ ছিল; সেই চ্যালেঞ্জ আমরা নিয়েছিলাম এবং নিজেদের টাকায় করব সেই ঘোষণা দিয়েছিলাম। নিজেদের টাকায় আমরা করেছি। পদ্মা সেতু নির্মাণের কারও কোনো টাকা আমরা নিইনি, সে সক্ষমতা আমরা অর্জন করেছি।’

    সভায় সভাপতিমণ্ডলীর সদস্যরা দলের কার্যনির্বাহী সদস্যদের মনোনয়ন দেওয়ার কথা রয়েছে।

    সভায় আওয়ামী লীগের নতুন কমিটির ১৫ জন সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মতিয়া চৌধুরী, শেখ ফজলুল করিম সেলিম, কাজী জাফরউল্ল্যাহ, ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন, পীযূষ কান্তি ভট্টাচার্য্য, ড. মো. আব্দুর রাজ্জাক, লেফটেন্যান্ট কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান, শাজাহান খান, মোফাজ্জল হোসেন চৌধুরী মায়া (বীর বিক্রম), অ্যাডভোকেট কামরুল ইসলাম, ডা. মোস্তফা জালাল মহিউদ্দিন, জাহাঙ্গীর কবির নানক, আব্দুর রহমান, এ এইচ এম খায়রুজ্জামান লিটন ও সিমিন হোসেন রিমি উপস্থিত আছেন।

    এর আগে গত শনিবার আওয়ামী লীগের ২২তম জাতীয় সম্মেলনের কাউন্সিল অধিবেশনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে টানা দশমবারের মতো সভাপতি এবং ওবায়দুল কাদেরকে তৃতীয়বারের মত সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত করা হয়।

    এ সময় কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের ৮১ সদস্যের মধ্যে ৪৮ জনের নাম ঘোষণা করা হয়। সভাপতিমণ্ডলীর দু’টি, সম্পাকমণ্ডলীর তিনটি এবং কার্যনির্বাহী সদস্যের ২৮টি পদে কারো নাম ঘোষণা করা হয়নি। অন্যদিকে ৫১ সদস্যের উপদেষ্টা পরিষদেরও অনেকগুলো সদস্য পদ ফাঁকা রয়েছে।

    মাহফুজা ২৬-১২

     

    আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
    আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

    Latest Posts

    spot_imgspot_img

    আলোচিত খবর