২০শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
৫ই ডিসেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
১১ই জমাদিউল আউয়াল, ১৪৪৪ হিজরি

    সর্বশেষ খবর

    শ্বাসরুদ্ধকর ম্যাচে বিজয়ের হাসি হাসলো ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর পর্তুগাল

    কাতার বিশ্বকাপে ‘এইচ’ গ্রুপে নিজেদের প্রথম ম্যাচে ঘানার বিপক্ষে বৃহস্পতিবার রাতে মাঠে নামে পর্তুগাল। স্টেডিয়াম ৯৭৪ এ বাংলাদেশ সময় রাত ১০টায় শুরু হয় ম্যাচটি। দ্বিতীয়ার্ধে নাটকীয়তা শেষে ৩-২ গোলে ম্যাচ জিতে মাঠ ছাড়ে পর্তুগীজরা। এ গ্রুপে ৩ পয়েন্ট নিয়ে সবার উপরে আছে পর্তুগাল।

    রোনালদোর রেকর্ড গড়া দিনে আফ্রিকান জায়ান্টদের ৩-২ গোলের ব্যবধানে হারালো ২০১৬ ইউরো চ্যাম্পিয়ন পর্তুগাল। পর্তুগালের হয়ে একটি করে গোল করেন রোনালদো, ফেলিক্স ও রাফায়েল লেও। আর ঘানার পক্ষে গোল করেন জর্দান আইয়ু ও বুকারি। ম্যাচের সবটুকু আকর্ষণ যেন জমা  ছিল দ্বিতীয়ার্ধের জন্য।

    ২০১৪ বিশ্বকাপের গ্রুপ পর্বেও এই ঘানার বিপক্ষে মুখোমুখি হয়েছিল রোনালদোরা। সেবার ২-১ ব্যবধানে জিতেছিল তারা। এবারের বিশ্বকাপেও ঘানার উপর আধিপত্য বিস্তার করে খেলতে থাকে পর্তুগিজরা।

    যোগ করা সময়ের শেষ মিনিটে গোল খেয়েই বসেছিল পর্তুগাল। গোলরক্ষক কস্তা ডি বক্সে বল ছেড়ে গোল লাইন থেকে বেশ খানিকটা সামনে চলে আসেন। পেছনে দিয়াজ বল ক্লিয়ার না করলে জালেই ঢুকে যেতো। শ্বাসরুদ্ধকর এই ম্যাচে শেষ হাসি হেসেছে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর পর্তুগাল।

    ৬৫ মিনিট থেকে গোল হয়েছে ৫টি। পর্তুগালের হয়ে ১টি করে গোল দিয়েছেন রোনালদো, ফেলিক্স ও রাফায়েল। আর ঘানার হয়ে গোল ২টি করেন আন্দ্রে ও বুকারি। প্রথমার্ধে একটি আক্রমণও না করা ঘানা দ্বিতীয়ার্ধে ৯টি আক্রমণ করে! অন্যদিকে পর্তুগাল ১০টি শট নেয়। ম্যাচে ৬২ শতাংশ সময় বল পর্তুগালের পায়ে ছিল। ঘানা বিশ্বকাপের সবশেষ ৫ ম্যাচে একটিতেও জিততে পারেনি।

    রোনালদোদের মিসে প্রথমার্ধে শেষ হয় গোলশূন্যভাবে। প্রথমার্ধে দারুণ খেলেছে পর্তুগাল। কিন্তু গোল মিসের কারণে এগিয়ে যেতে পারেনি। রোনালদো শুরুতে একটি নিশ্চিত গোল মিস করেন। পরে একটি গোল দিলেও ফাউল করায় সেটি বাতিল হয়। আরও দুবার নষ্ট করেন সুযোগ।

    দ্বিতীয়ার্ধে ৬৫ মিনিটে পেনাল্টি থেকে রোনালদোর গোল এবং এগিয়ে যায়  পর্তুগাল। ডি বক্সে রোনালদোকে ফাউল করেন সালিসু। পেনাল্টি পায় পর্তুগাল। বাঁ দিকে জোরালো শটে গোল দিয়ে এগিয়ে দেন দলকে।

    ৮ মিনিট পরেই সমতা আনে ঘানা। গোল লাইনের খুব কাছ থেকে আন্দ্রে আইয়ুর পায়ের টোকা খুঁজে নেয় পর্তুগালের জাল। বিশ্বকাপে আন্দ্রের গোল ৩টি। ঘানার হয়ে যেটি দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।

    ৭৮ মিনিটে জোয়াও ফেলিক্স ব্যবধান দিগুণ করে পর্তুগালকে এগিয়ে দেন। ব্রুনো ফার্নান্দেজের সহায়তায় ডান দিক থেকে পায়ের আলতো শটে ঘানার জালে বল জড়ান।

    ১৫ মিনিটের ব্যবধানে তিন গোল দিয়েছে পর্তুগাল। ৮০ মিনিটে তৃতীয় গোল দেন রাফায়েল। আবারও গোলের কারিগর ব্রুনো ফার্নান্দেজ। ডি বক্সের বাঁ দিকে বল পেয়েই নিখুঁত ফিনিশিংয়ে বল জড়ান জালে। পর্তুগীজ জার্সিতে রাফায়েলের এটি প্রথম গোল। আর ব্রুনো ১৯৬৬ সালের পর বিশ্বকাপের কোনো আসরে পর্তুগালের হয়ে এক ম্যাচে সর্বোচ্চ দুটি সহায়তা করেন।

    বুকারি চমকে দেন পর্তুগালকে। ডান কোনা দিয়ে দারুণ হেডে দলের হয়ে দ্বিতীয় গোলটি করেন বুকারি। ৩-২ গোলে এগিয়ে পর্তুগাল। শেষ পর্যন্ত আর সমতা ফেরাতে পারেনি ঘানা।

    স্পট কিক থেকে গোল করে ইতিহাস সৃষ্টি করেন রোনালদো। একমাত্র ফুটবলার বিশ্বকাপ ইতিহাসে ৫টি টুর্নামেন্টে গোল করার অনন্য নজির স্থাপন করলেন রোনালদো। এছাড়া বিশ্বকাপ ইতিহাসের দ্বিতীয় বয়স্ক ফুটবলার হিসেবে গোল করার রেকর্ডও এখন তার দখলে।

    মাহফুজা ২৫-১১

     

    আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
    আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

    Latest Posts

    spot_imgspot_img

    আলোচিত খবর