১০ই আশ্বিন, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
২৯শে সফর, ১৪৪৪ হিজরি

    সর্বশেষ খবর

    গতানুগতিকতা ভেঙে অদম্য সাহস ও নেতৃত্বের দক্ষতায় নারীরা উজ্জ্বল হয়ে উঠেছে প্রতিটি ক্ষেত্রে – প্রধানমন্ত্রী

    গতানুগতিকতা ভেঙে অদম্য সাহস ও নেতৃত্বের দক্ষতায় নারীরা উজ্জ্বল হয়ে উঠেছে প্রতিটি ক্ষেত্রে  জানালেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

    মঙ্গলবার জাতিসংঘ সদর দপ্তরে ট্রাস্টিশিপ কাউন্সিলে সাধারণ পরিষদের সভাপতি কাসাবা কোরোসি আহূত ইউএনজিএ প্ল্যাটফর্ম অফ উইমেন লিডারর্স-এর উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকে দেয়া ভাষণে তিনি এ কথা জানান। এবারের সম্মেলনের প্রতিপাদ্য হচ্ছে ‘আজকের আন্তসংযুক্ত চ্যালেঞ্জে নারী নেতাদের দ্বারা রূপান্তরমূলক সমাধান।’

    সিদ্ধান্ত গ্রহণ প্রক্রিয়ায় নারীদের যুক্ত করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন তিনি।  প্রধানমন্ত্রী বলেন, জটিল বৈশ্বিক চ্যালেঞ্জ মোকাবিলায় মতামত বিনিময় এবং  মানবজাতির জন্য’ ইতিবাচক ফলাফল আনার লক্ষ্যে এই নেটওয়ার্ক -ইউএনজিএ প্ল্যাটফর্ম অব উইমেন লিডারস ব্যবহার করার উপযুক্ত সময় এটাই ।

    সরকারপ্রধান তিন দফা প্রস্তাব করেন- তা হলো লিঙ্গ সমতার বিষয়ক উপদেষ্টা বোর্ডের স্থানীয়করণ, পর্যাপ্ত রাজনৈতিক ও আর্থিক উপায়ে নারী নেতৃত্বাধীন সুশীল সমাজ-সংস্থাকে লালন ও সমর্থন এবং লিঙ্গ সমতার জন্য সাধারণ এজেন্ডাকে শক্তিশালী করা ।

    শেখ হাসিনা তার প্রথম দফা প্রস্তাবে লিঙ্গ সমতা বিষয়ে উপদেষ্টা বোর্ড গঠনের সুপারিশ করেন। এছাড়াও নারী-নেতৃত্বাধীন সুশীল সমাজ সংস্থাকে পর্যাপ্ত রাজনৈতিক ও আর্থিক উপায়ে লালন-পালন এবং সমর্থন করা প্রয়োজন । লিঙ্গ সমতার জন্য তাদের সাধারণ এজেন্ডাকে শক্তিশালী করতে নেতৃবৃন্দের একটি শীর্ষ সম্মেলন আহ্বান করার লক্ষ্যে সবাইকে আমন্ত্রণ জানান তিনি।

    শুধু আমাদের নয়- সকল নেতাদের লিঙ্গ সমতা এবং নারীর ক্ষমতায়নের অগ্রগতির জন্য দৃঢ় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ হওয়া উচিত এবং উপস্থাপন করা উচিত বলে জানান প্রধানমন্ত্রী ।

    বাংলাদেশের সরকার নারীদের আইনি সুরক্ষা নিশ্চিত করা এবং তাদের আর্থিক স্বাধীনতা অর্জনের জন্য নতুন উপায় তৈরি করাসহ নারীর ক্ষমতায়নে বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে।দেশের জাতীয় বাজেটের প্রায় ২৭ শতাংশ নারীর সামাজিক ও অর্থনৈতিক ক্ষমতায়নের জন্য বরাদ্দ করা হয় ।

    নারী ও পুরুষ উদ্যোক্তাদের জন্য অর্থে সমান প্রবেশাধিকার নিশ্চিত করে নিরপেক্ষ আইনি কাঠামো গড়ে তোলায় সুনির্দিষ্ট নীতিগত পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে। নারী উদ্যোক্তাদের ২৫ লাখ টাকা পর্যন্ত জামানতবিহীন ঋণ দিচ্ছে বাংলাদেশের কেন্দ্রীয় ব্যাংক।

    পুনঃঅর্থায়ন প্রকল্পের ১৫ শতাংশ তহবিল, ১০ শতাংশ শিল্প প্লট এবং ১০ শতাংশ ক্ষুদ্র উদ্যোক্তা তহবিল নারীদের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছে । প্রতিটি ব্যাংক ও নন-ব্যাংক আর্থিক প্রতিষ্ঠানে নারী উদ্যোক্তাদের জন্য ডেডিকেটেড ডেস্ক রয়েছে। তৈরি পোশাক শিল্পে ৪০ লাখের বেশি নারী কর্মরত এবং দেশের প্রায় ৩৫ শতাংশ নারীর ব্যাংক অ্যাকাউন্ট রয়েছে। জিডিপি’র প্রবৃদ্ধিতে ৩৪ শতাংশ নারীর অবদান রয়েছে।

    ৪০ শতাংশ ২০২১ সালের মধ্যে দেশের প্রতিটি খাতে এবং ২০৩০ সালের মধ্যে ৫০ শতাংশ নারীর অংশগ্রহণ নিশ্চিত করার লক্ষ্যে ত সরকার কাজ করছে বলে জানান শেখ হাসিনা।

    মাহফুজা ২১-৯

    আমাদের ইউটিউব চ্যানেলে সাবস্ক্রাইব করুন
    আমাদের ফেসবুক পেজে লাইক দিয়ে পাশে থাকুন

    Latest Posts

    spot_imgspot_img

    আলোচিত খবর