Lead Newsচট্টগ্রামসারাদেশ

কক্সবাজারে বিএনপি-যুবলীগ পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি ঘিরে ১৪৪ ধারা জারি

কক্সবাজারে বিএনপি ও যুবলীগ পাশাপাশি স্থানে পাল্টাপাল্টি কর্মসূচি আহবান করায় ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন। বিএনপি চেয়ারপার্সন বেগম খালেদা জিয়ার নি:শর্ত মুক্তি ও বিদেশে চিকিৎসার দাবিতে সমাবেশ ডাক দেয় কক্সবাজার জেলা বিএনপি।

সোমবার বিকেলে শহরের শহীদ স্মরনী সড়কে এ কর্মসূচি শুরু হওয়ার কথা ছিল। অপরদিকে ওই স্থান থেকে ১০০ গজ দূরে শহীদ মিনারে গণতন্ত্রের বিজয় উদযাপনে কর্মসূচী ঘোষণা করে যুবলীগ। এই পাল্টাপাল্টি কর্মসূচী ঘিরে অপ্রীতিকর ঘটনার আশঙ্কায় রোববার রাতে ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন। বিষয়টি নিশ্চিত করে কক্সবাজারের অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট আবু সুফিয়ান বলেন, দুইটি পক্ষের কর্মসূচীর কারণে একটি উত্তপ্ত পরিস্থিতির আশঙ্কায় ১৪৪ ধারা জারি করা হয়েছে। যাতে কোন ধরণের অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সে জন্যে প্রশাসন মাঠে রয়েছে। ১৪৪ জারির নথি থানাতে প্রেরণ করা হয়েছে।

কক্সবাজার জেলা বিএনপি সাধারণ সম্পাদক এড. শামীম আরা স্বপ্না জানিয়েছেন, বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান, চেয়ারপার্সনের উপদেষ্টা মিজানুর রহমান মিনু, সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুবের রহমান শামীমসহ কেন্দ্রীয় নেতারা সমাবেশে যোগদানের লক্ষ্যেপ কক্সবাজার পৌঁছেছেন।

এদিকে রবিবার সন্ধ্যায় জেলা বিএনপির কার্যালয় ঘুর দেখা গেছে, সমাবেশকে কেন্দ্র করে মঞ্চ তৈরীর কাজ করছে শতাধিক শ্রমিক। জড়ো হওয়া বিএনপির তৃণমূল নেতাকর্মীর মাঝেও উৎসাহ দেখা গেছে।  জেলা বিএনপির কার্যালয়, শহীদ মিনার এলাকায় ব্যানার ফেস্টুনে ছেয়ে গেছে। জেলার নয় উপজেলা থেকে ৫০ হাজার নেতাকর্মী এতে অংশগ্রহণ করবেন বলে নেতারা দাবি করছেন। বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে বিএনপির কেন্দ্রীয় মৎস্যজীবী বিষয়ক সম্পাদক সাবেক এমপি লুৎফুর রহমান কাজল সাংবাদিকদের জানান, ইতোমধ্যে সোমবারের সমাবেশকে ঘিরে সকল প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন। সকলকে অবহিত করেছি। গণতান্ত্রিক দেশ হিসেবে প্রশাসন, আওয়ামীলীগসহ সকলে সহযোগিতা করবে সেটাই প্রত্যাশা করছি।

প্রশাসনের কাছ থেকে কোন ধরনের বাঁধা পেয়েছেন কিনা এমন প্রশ্নে লুৎফর রহমান কাজল বলেন, আমরা সমাবেশের জন্য পাবলিক লাইব্রেরী মাঠ, ঈদগাহ ময়দান, মুক্তিযোদ্ধা মাঠের অনুমতি চেয়েছিলাম। আমাদের সেখানে অনুমতি দেয়নি। সমাবেশে হাজার হাজার জনতা সমবেত হবেন। তারপরও আমি আশা করছি, সকলের সহযোগিতা পাব।

অপরদিকে জেলা যুবলীগের সভাপতি সোহেল আহমেদ বাহাদুর জানান, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন বাংলাদেশের গণতন্ত্র ও উন্নয়নের ইতিহাসে একটি বিজয়ের মাইলফলক। এই নির্বাচনের মধ্য দিয়ে অশুভ শক্তি, দুর্নীতি-সন্ত্রাস ও জঙ্গিবাদের পৃষ্ঠপোষকদের আস্ফালন আর সহিংস রাজনীতির অন্ধকার ছায়া কাটিয়ে গণতন্ত্রের নবতর অভিযাত্রায় অগ্রসর হয় বাংলাদেশ, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ৩০ ডিসেম্বর ‘গণতন্ত্রের বিজয় দিবস’ পালন করে আসছে। গণতন্ত্রের বিজয় দিবস পালন উপলক্ষ্যে বাংলাদেশ আওয়ামী যুবলীগ কক্সবাজার জেলা শাখার উদ্যোগে শহীদ মিনার চত্ত্বরে স্বাস্থ্য বিধি মেনে এই কর্মসূচি পালন করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে।

 

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button