Uncategorized

এসএমই খাতের টার্মলোন দীর্ঘমেয়াদী করার আহ্বান এফবিসিসিআইয়ের

এসএমইদের সহায়তায় হেল্প ডেস্ক কার্যকরভাবে নিশ্চিত করা ও এসএমই খাতের টার্মলোনের মেয়াদ দীর্ঘমেয়াদী ৭-১০ বছর মেয়াদি করার আহ্বান জানিয়েছে ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন ফেডারেশন অব বাংলাদেশ চেম্বার্স অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি (এফবিসিসিআই)।

বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) রাজধানীর বনানীর হোটেল ‘দ্য শেরাটন’ এ দেশের ‘বিরাজমান পরিস্থিতিতে দেশের সার্বিক অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও অগ্রযাত্রায় ব্যাংকিং খাতের ভূমিকা,সমস্যা ও সম্ভাবনা’ শীর্ষক দেশের সব বাণিজ্যিক ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের সঙ্গে আয়োজিত এক সভায় এ কথা জানান এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি জসিম উদ্দিন।

তিনি বলেন, এসএমই খাতের উন্নয়নের লক্ষ্যে সহজ শর্তে বেশি প্রাতিষ্ঠানিক আর্থিক সুবিধা নিশ্চিত করতে বাংলাদেশ ব্যাংক এ খাতের জন্য ব্যাংকগুলোতে ‘ডেডিকেট ডেস্ক’  চালু, এসএমই সার্ভিস সেন্টার, নতুন ও নারী উদ্যোক্তাদের জন্যে বিশেষ সুবিধা প্রবর্তনসহ বহুমুখী পদক্ষেপ নিয়েছে। কিন্তু, বাস্তবতা হচ্ছে। কোনো কোনো ব্যাংকে এসব ইতিবাচক উদ্যোগ বাস্তবায়নে অনিহা পরিলক্ষিত হয়।  আমরা আহ্বান করছি যাতে সব ব্যাংকের শাখাসমূহে এসএমইদের সহায়তায় হেল্প ডেস্ক কার্যকরভাবে নিশ্চিত করা হয়।

এফবিসিসিআইয়ের সভাপতি আরও বলেন, এসএমই-দের চলতি মূলধনের চাহিদা পূরণে চলমান ঋণ মঞ্জুর অব্যাহত রাখার এবং ব্যাংকার-গ্রাহক সম্পর্কের ভিত্তিতে মেয়াদি ঋণের সময়সীমা এক বছর হতে সর্বোচ্চ ৩৫ বছর পর্যন্ত রাখার বিধান রয়েছে। কিন্তু অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ব্যাংকগুলো এক বছরের বেশি সময় দেয় না। এসএমই খাতের টার্মলোন (মেয়াদি ঋণ) সাত থেকে ১০ বছর মেয়াদি করার পাশাপাশি গ্রেস পিরিয়ড দুই বছর করা জরুরি।

ব্যবসায়ীদের এই নেতা বলেন, দেশীয় শিল্প প্রতিষ্ঠানের সুরক্ষায় প্রয়োজনে ফোর্স লোন করে যথাসময়ে এক্সপোর্ট বিল পরিশোধ করার প্রস্তাব দেন।

অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স, বাংলাদেশ-এবিবির চেয়ারম্যান আলী রেজা ইফতেখারসহ দেশের সব বাণিজ্যিক ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী ও এফবিসিসিআইয়ের পরিচালকরা এই সময় উপস্থিত ছিলেন।

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button