নভেম্বর ১৪, ২০১৯ ১০:৩৫ পূর্বাহ্ণ ||২৯শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ||১৬ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

যে ২২ শর্তে বিএনপি জনসভা করার অনমতি পেলো

অবশেষে বিএনপি রাজধানীর সোহরাওয়াদী উদ্যানে জনসভা করার অনুমতি পেয়েছে। তবে এ জনসভা করার জন্য পুলিশের পক্ষ থেকে দেয়া  হয়েছে ২২ শর্ত।

শনিবার দুপুর ২টায় জনসভা শুরু হবে

জনসভার শর্তে যা যা আছে

# অনুমতি পাওয়া স্থান ব্যবহারে অবশ্যই সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিতে হবে।

# বিকেল ৫টার মধ্যে সমাবেশ শেষ করতে হবে।

# ‘ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত আসে’ এমন কোনো ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন, বক্তব্য দেয়া বা প্রচার করা যাবে না।

# লাঠিসোটা, ব্যানার, ফেস্টুন বহনের আড়ালে লাঠি, রড ব্যবহার করা যাবে না।

# নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আইডি কার্ডধারী স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ করতে হবে।

# প্রবেশ পথে আর্চওয়ে এবং মেটাল ডিটেক্টর দিয়ে আগতদের চেকিং করতে হবে।

#মিছিল নিয়ে সমাবেশে আসা যাবে না।

# উসকানিমূলক কোনো বক্তব্য দেয়া বা প্রচারপত্র বিলি করা যাবে না।

# ‘রাষ্ট্রবিরোধী’ আইনশৃঙ্খলা পরিপন্থি বা জননিরাপত্তাবিরোধী কার্যকলাপ করা যাবে না।

# অনুমতি পাওয়া স্থানে অনুষ্ঠানের যাবতীয় কার্যক্রম সীমাবদ্ধ রাখতে হবে।

#সমাবেশের নির্ধারিত সময়ের আগে উদ্যান বা তার আশপাশের রাস্তা-ফুটপাটে সমবেত হওয়া যাবে না।

# যান চলাচলে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি হয়- এমন কিছু করা যাবে না।

# নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় অনুষ্ঠান স্থলের অভ্যন্তরে ও বাইরে রেজ্যুলেশনযুক্ত সিসি ক্যামেরা স্থাপন করতে হবে।

# নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় অগ্নি নির্বাপণের ব্যবস্থা রাখতে হবে।

# অনুমোদিত স্থানের বাইরে সাউন্ড বক্স ব্যবহার করা।

#সমাবেশ শুরুর দুই ঘণ্টা আগে থেকে লোক আসতে পারবে।

# মঞ্চকে সমাবেশ ছাড়া অন্য কোনো কাজে ব্যবহার করা যাবে না।

# নামাজ, আযানের সময় বা ধর্মীয় কাজ চলাকালে মাইক ব্যবহার করা যাবে না।

# নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় সমাবেশে আসা লোকদের যানবাহন তল্লাশির ব্যবস্থা করতে হবে।

# সমাবেশস্থলের বাইরে প্রজেকশন ব্যবহারকরা যাবে না।

# শর্ত ভঙ্গ করলে যে কোনো সময় কর্তৃপক্ষ সমাবেশের অনুমতি বাতিল করতে পারবে।

# জনস্বার্থে সমাবেশের অনুমতি বাতিলের ক্ষমতা কর্তৃপক্ষ সংরক্ষণ করে।

এর আগে বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে  জনসভার অনুমতি পেতে ডিএমপি কমিশনারের সঙ্গে করেন বিএনপির দুই সদস্যের একটি প্রতিনিধিদল।

 

About