August 25, 2019 7:01 AM

ফরহাদ মজহার ও তার স্ত্রী ফরিদার বিরুদ্ধে পুলিশের পাল্টা মামলা

মিথ্যা তথ্য দেয়ার অভিযোগে কবি, প্রাবন্ধিক ফরহাদ মজহার ও তার স্ত্রী ফরিদা আক্তারের বিরুদ্ধে পুলিশ আদালতে পাল্টা মামলা করেছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় মামলাটি দায়ের করা হয় বলে জানিয়েছেন আদাবর থানার উপ-পরিদর্শক শাহ আলম।তিনি বলেন, আদালতে প্রসিকিউশন দাখিল করে অপহরণের মিথ্যা তথ্য দেয়ায় দন্ডবিধির ১০৯ ও ২১১ ধারায় ফরহাদ মজহার ও তার স্ত্রীর বিরুদ্ধে মামলা করা হয়েছে। আগামী রোববার মামলাটি আদালতে তোলা হবে এবং ওই দিনই আদালত মামলার বিষয়ে পরবর্তী নিদের্শনা দেবেন।
চলতি বছরের ৩ জুলাই সকালে রাজধানীর শ্যামলীর বাসা থেকে বেরিয়ে নিখোঁজ হন ফরহাদ মজহার। ওই দিনই তার স্ত্রী ফরিদা আখতার স্বামীকে অপহরণের অভিযোগে থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেন, যা পরে মামলা হিসেবে নথিভুক্ত হয়।
আলোচিত এই ব্যক্তির অন্তর্ধান নিয়ে রাজনৈতিক অঙ্গন থেকে শুরু করে সব মহলে আলোচনা-সমালোচনার মধ্যেই তাকে খুঁজে বের করতে দীর্ঘ ১৮ ঘণ্টার এক রুদ্ধশ্বাস অভিযান চলে। পরে রাত সাড়ে ১১টার দিকে যশোরের নওয়াপাড়ায় ঢাকাগামী হানিফ পরিবহনের একটি বাস থেকে মজহারকে উদ্ধার করা হয়। দীর্ঘ তদন্তের পর পুলিশ জানায় ফরহাদ মজহার অপহরণ হননি, তিনি নিজেই অপহরণের নাটক সাজিয়েছিলেন।
পরে অপহরণের অভিযোগের ‘সত্যতা পাওয়া যায়নি’ জানিয়ে আদালতে চূড়ান্ত প্রতিবেদন দাখিল করে ‘মিথ্যা মামলা দায়েরের’ অভিযোগে পাল্টা একটি মামলা করার অনুমতি চায় গোয়েন্দা পুলিশ। গত ১৪ নভেম্বর ঢাকার মহানগর হাকিম আদালতে ওই প্রতিবেদন জমা দেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা গোয়েন্দা পুলিশের পরিদর্শক মাহবুবুল হক।
ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার (পশ্চিম) গোলাম মোস্তফা রাসেল বলেন, ফরহাদ মজহার ও তার পরিবারের পক্ষ থেকে যে অপহরণের অভিযোগটি করা হয়েছিল তা ছিল মিথ্যা। এ কারণে ফৌজদারি দণ্ডবিধির ২১১ ও ১০৯ ধারায় ব্যবস্থা নিতে আদালতে আবেদন করা হয়েছে, যাতে তাদের এবং সহযোগীদের বিচারের আওতায় আনা হয়।
ফৌজদারি দণ্ডবিধির ২১১ ধারায় মিথ্যা মামলা দায়েরের শাস্তির বিষয়ে বলা হয়েছে, কোনো ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের ক্ষতি করার উদ্দেশ্যে কেউ কোনো অভিযোগ দায়ের করলে অথবা কোনো অপরাধ করেছে বলে মিথ্যা মামলা দায়ের করলে মামলা দায়েরকারীকে দুই বছর পর্যন্ত কারাদণ্ড বা অর্থদণ্ড কিংবা উভয় দণ্ড দেওয়া যাবে।
তবে অভিযোগের বিষয় যদি মৃত্যুদণ্ড, যাবজ্জীবন বা সাত বছরের বেশি সাজার যোগ্য হয়, আর সেই অভিযোগ যদি মিথ্যা প্রমাণিত হয়, তাহলে মিথ্যা অভিযোগকারীর সর্বোচ্চ সাত বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডসহ অর্থদণ্ড হবে। আর ১০৯ ধারায় অপরাধ সংঘটনের ষড়যন্ত্রে অংশ নেওয়া, উসকানি দেওয়া বা সহযোগিতার বিষয়ে বলা হয়েছে। এ ধরনের ক্ষেত্রে আসামি যে অপরাধ করার ষড়যন্ত্র করেছেন বলে প্রমাণিত হবে, তার ক্ষেত্রে সেই অপরাধের শাস্তিই প্রযোজ্য হবে।

About