নভেম্বর ১৪, ২০১৯ ৯:৫৫ পূর্বাহ্ণ ||২৯শে কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ||১৬ই রবিউল-আউয়াল, ১৪৪১ হিজরী

বিশ্ব ইজতেমায় মানুষের ঢল, ময়দানে ৬ মুসল্লির মৃত্যু

সুষ্ঠু পরিবেশে চলছে এবারের প্রথম পর্বের বিশ্ব ইজতেমা। তাবলীগ জামায়াতের মুরুব্বিরা জানিয়েছেন, গত ১১ জানুয়ারি বুধবার বিকেল থেকে মুসল্লিরা ইজতেমা মাঠে আসতে শুরু করেছেন। অতীতে বাংলাদেশসহ সারা বিশ্ব থেকে আগত মুসল্লিদের ইজতেমা মাঠে স্থান সংকুলান না হওয়ায় আখেরি মোনাজাতে অংশ নিতে সমস্যা হতো। কোনো রকম অসুবিধা যাতে না হয় সেজন্য দেশের ৬৪টি জেলাকে ২ ভাগে ভাগ করা হয়। এদের মধ্যে এ বছর নির্দিষ্ট ৩২ জেলার মুসল্লিরা বিশ্ব ইজতেমায় অংশগ্রহণ করবেন।

প্রথম পর্বে ১৬ জেলা এবং দ্বিতীয় পর্বে ১৬ জেলার মুসল্লিরা তাদের জন্য নির্ধারিত খিত্তায় অবস্থান নিয়ে ইবাদত বন্দেগিতে অংশ নেবেন। ঢাকা জেলার মুসল্লিরা দুই পর্বেই অংশ নেবেন।এরপর সারা দেশের মুসল্লিরাও দুই পর্বে ইজতেমায় অংশ নেবেন। মাঠে মুসল্লিদের অবস্থানও জেলাওয়ারি নির্দিষ্ট খিত্তায়(ভাগে) বিভক্ত করা হয়েছে।
দিল্লির তাবলীগের মারকাজ মুরব্বি মাওলানা সাদ কান্ধলভী ইতোমধ্যে বাংলাদেশে এসেছেন।তিনি ইজতেমা ময়দানে বিদেশি মেহমানদের জন্য নির্ধারিত প্যান্ডেলে অবস্থান করছেন। আজ জুমা নামাজ পড়ান তিনি। মাওলানা সাদ গত দুই বছর ধরে বিশ্ব ইজতেমার আখেরি মোনাজাত পরিচালনা করে আসছেন। এর আগে মোনাজাতের পূর্বে তিনি শুধু হেদায়তি বয়ান করতেন।

মাওলানা সাদ তাবলিগ জামাতের প্রতিষ্ঠাতা মাওলানা ইলিয়াস (রহ)এর নাতি। বর্তমানে তিনি তাবলিগ জামাতের বিশ্ব মারকাজ দিল্লির নিজামুদ্দিনে মুরব্বি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন। দিল্লী নেজাম উদ্দিন মসজিদের ঈমাম মাওলানা সাদ।

দেশি-বিদেশি ইসলামি চিন্তাবিদ ও ওলামায়ে কেরামগণ ছয় উসুল যথা-ঈমান, নামাজ, এলেম ও জিকির, একরামুল মুসলিমীন, তাসহীহ নিয়ত, দাওয়াত ও তাবলীগ সম্পর্কে বিভিন্ন দিক-নির্দেশনামূলক বয়ান রাখবেন। মূল বয়ান সঙ্গে সঙ্গে বিভিন্ন ভাষায় তরজমা করা হবে।
বিশ্ব ইজতেমায় যোগ দিতে আসা ৬ মুসল্লি মৃত্যুবরণ করেছেন। টঙ্গীর তুরাগ নদীর তীরে ইজতেমা ময়দানে বুধবার রাত থেকে আসা মুসল্লিদের মধ্যে শুক্রবার দুপুর পর্যন্ত ৬ জনের মৃত্যুর খবর পাওয়া গেছে। টঙ্গী সরকারি হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. মোখলেছুর রহমান বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।
তিনি জানান, ৬ মুসল্লির মধ্যে- বুধবার দিবাগত রাতে কক্সবাজারের হোসেন আলী (৬৫), বৃহস্পতিবার সকালে ময়মনসিংহের নান্দাইলের মারুয়া গ্রামের মো. ফজলুল হক (৫৬), বিকালে সাতক্ষীরা জেলা সদরের খেজুরডাঙ্গা এলাকার আ. আব্দুস সাত্তার (৬০), সন্ধ্যায় টাঙ্গাইলের ধনবাড়ি উপজেলার নিজবন্নী এলাকার জানু ফকির (৭০), রাতে মানিকগঞ্জের সাহেব আলী (৩৫) ও শুক্রবার সকাল নয়টার দিকে ফেনীর দাগনভূইয়া উপজেলার মাছিমপুর গ্রামের বাবুল মিয়া (৬০) মারা যান।
তারা সবাই বার্ধক্যজনিত কারণে এবং হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান বলে জানান আবাসিক চিকিৎসক ডা. পারভেজ।
এর আগে বিশ্ব ইজতেমার প্রথম পর্ব শুরু হয় আম বয়ানের মধ্য দিয়ে। ধর্মপ্রাণ মুসল্লিদের এ বৃহৎ জমায়েত উপলক্ষে দেশ বিদেশের বিপুলসংখ্যক মুসুল্লি ইজতেমা ময়দানে জমায়েত হতে শুরু করেছেন। প্রচণ্ড শীতকে উপেক্ষা করে বয়ান শুনতে ছুটে আসছেন তারা। দুপুরে খাওয়ার পর আবারও বয়ান শুরু হবে। আছরের নামাজের বিরতি শেষে আবারও শুরু হবে বয়ান।

উল্লেখ্য, প্রথমবারের মতো গত বছর থেকে শুরু হয় দেশের ৬৪ জেলাকে চার ভাগ করে বিশ্ব ইজতেমার আয়োজন। ওই বছর মোট ৩২টি জেলা নিয়ে দুই পর্বে অনুষ্ঠিত হয় ইজতেমা। এ বছর দুই পর্বে বাকি ৩২ জেলার মুসল্লিরা অংশ নিচ্ছেন।

প্রথম পর্বে অংশ নেবে ঢাকার একাংশসহ ১৭টি জেলার মুসুল্লিরা। অবশিষ্ট ১৫ জেলার মুসুল্লিরা আগামী ২০ জানুয়ারি থেকে দ্বিতীয় পর্বে অংশ নেবেন। তবে বিদেশি মুসল্লিরা প্রতি বছর বিশ্ব ইজতেমায় অংশ নিতে পারবেন। স্থান সংকুলান ও নিরাপত্তার কথা ভেবে এ পরিবর্তন আনা হয়। বিশ্ব ইজতেমার শীর্ষ পর্যায়ের মুরুব্বিরা ইজতেমার এ তারিখ নির্ধারণ করেন।

আগামী রোববার আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে ইজতেমার প্রথম পর্ব শেষ হবে। এরপর চার দিন বিরতি দিয়ে ২০ জানুয়ারি শুরু হবে দ্বিতীয় পর্ব। দ্বিতীয় পর্বে অংশ নেবে বাকি ১৬ জেলার তাবলিগ অনুসারীরা। ২২ জানুয়ারি দ্বিতীয় পর্বের আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে সমাপ্তি ঘটবে দুই পর্বের বিশ্ব ইজতেমা।
আলোচিত খবর/স.ই

About